মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৪ মার্চ ২০১৫

কর্পোরেশনের ঋণ সম্পর্কিত

কর্পোরেশন বর্তমানে নিম্নোক্ত দুই রকম (Type) এর গৃহ ঋণ দিয়ে থাকে:

 

১. সাধারণ ঋণ: একক ব্যক্তির বা স্বামী ও সএীর যৌথ নামে প্রদত্ত ঋণ;

 

২. ফ্ল্যাট/এপার্টমেন্ট ঋণ: নির্মীয়মান ফ্ল্যাট/এপার্টমেন্ট কেনার জন্য ঋণ;

 

 

সাধারণ ঋণকে নিম্নোক্ত  ছয় ভাগে ভাগ করা হয়েছে-

 

১. একক ব্যক্তির বা স্বামী ও সএীর যৌথ নামে প্রদত্ত ঋণ

 

২.গ্রুপ ঋণ: একাধিক ব্যক্তির মালিকানাধীন প্লটে ফ্ল্যাট/ইউনিট ভিত্তিক প্রত্যেককে আলাদা আলাদা ঋণ হিসাব   নম্বরে প্রদত্ত ঋণ;

 

৩.বর্ধিত ঋণ: অনুমোদিত নকশার মুল ঋণে নির্মিত অংশ বাদে অনির্মিত অংশ নির্মাণের জন্য প্রদত্ত ঋণ;

 

৪.মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত স্কীমের ঋণ: মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত শ্রেণীর জন্য ৫৫০ হতে ১০০০ বর্গফুট আয়তনের ইউনিট বিশিষ্ট বাড়ী নির্মাণ/ফ্ল্যাট ক্রয় ও জমির একাধিক মালিকের ক্ষেত্রে গ্রুপ ভিত্তিক ফ্ল্যাট নির্মাণের জন্য প্রদত্ত ঋণ;  

 

৫.সেমি পাকা বাড়ীর জন্য ঋণ: ঢাকা ও চট্রগ্রাম মেট্রোপলিটন এলাকা ও বিভাগীয় সদর ব্যতীত অন্যান্য জেলা, উপজেলা সদর এবং তৎসংলগ্ন সম্ভাবনাময় গ্রোথ সেন্টার/ বাণিজ্যিক স্থান সমূহে সেমি পাকাবাড়ীর নির্মাণের জন্য প্রদত্ত ঋণ;

 

৬.স্বল্প মেয়াদী বিশেষ ঋণ: অনুমোদিত নক্শা মোতাবেক বাড়ী / দালানের নির্মাণ কাজ আরম্ভ করে নির্মাণ কাজ শেষ/ ফিনিশিং পর্যায়ে এনেছেন শুধুমাত্র তাদের দালানের অসম্পূর্ণ নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ করার জন্য প্রদত্ত ঋণ।

 

 

 

ঋণ কার্যক্রমের এলাকা:

 

বর্তমানে ঢাকা ও চট্রগ্রাম মহানগরীসহ দেশের সকল বিভাগীয়, জেলাসদর, উপজেলা সদর ও সম্ভাবনাময় গ্রোথ সেন্টার/ বানিজ্যিক গুরুত্বপুর্ণ স্থানসমূহে কর্পোরেশনের ঋণ কার্যক্রম চালু রয়েছে।

 

 

ঋণ প্রাপ্তির যোগ্যতা:

 

বাংলাদেশের সকল সুস্থ্য/স্বাভাবিক নাগরিক কর্পোরেশনের ঋণ প্রাপ্তির যোগ্য হবেন। একই পরিবারের মধ্যে একাধিক ঋণ প্রদান করা হবে না (পরিবার বলতে স্বামী ও সএী এবং তাদের উপর নির্ভরশীল ছেলে মেয়েদের বোঝাবে)। শুধুমাত্র পরিবারের একজন সদস্যের নামে ঋণ আবেদন করা যাবে। কর্পোরেশন থেকে পূর্বে কোন ঋণ নিয়ে থাকলে পূর্বের ঋণ সম্পূর্ণ পরিশোধ না হওয়া পর্যমত ঐ পরিবারের অন্য কোন সদস্য ঋণের আবেদন করতে পারবে না। স্বামী সএীর ক্ষেত্রে একক নামে বা যৌথ নামে শুধুমাত্র একটি ঋণ দেয়া হবে। যৌথ নামে ঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে স্বামী, সএীর মধ্যে যে কোন একজনের নিজস্ব আয় থাকলে চলবে। সাধারণত নাবালকের নামে কোন ঋণ মঞ্জুর করা যাবে না। তবে নাবালকের পক্ষে স্বাভাবিক বা আইনগত অভিভাবক জামিনদার হলে এবং অভিভাবক হিসাবে নাবালকের পক্ষে সকল দলিলপত্রে স্বাক্ষর করলে ঋণ দেয়া যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে অভিভাবককে আলাদা ঋণ দেয়া হবে না।

 

 

একই শহরে যাদের বসবাসের নিজস্ব বাড়ী আছে তাদের নতুন বাড়ী নির্মানের জন্য ঋণ বিবেচনা করা হবে না। প্রস্তাবিত বন্ধকী জমিতে অনুমোদিত নক্শা অনুযায়ী ইতিমধ্যে নির্মিত বাড়ীর ( যদি থাকে ) অবশিষ্ট অংশ ( ভার্টিক্যালী, অথবা হরিজেন্টালী) নির্মাণ / সম্প্রসারনের জন্য প্রচলিত বিবি মোতাবেক ঋণ বিবেচনা করা যাবে এবং ঋণ সুপারিশ করার সময় নির্মিত অংশের সম্ভাব্য ভাড়ার ৯০% টাকাকে পরিশোধযোগ্য আয় হিসাবে গ্রহণ করে ঋণের প্রাপ্যতা নিরুপন করা হবে।
 

 

 

 

সাধারণ ঋণ, গ্রুপ ঋণ ও মধ্যবিত্ত-নিম্নমধ্যবিত্ত স্কীমের ঋণ এর সিলিং এবং নির্মাণ হার:

 

জমির মূল্য, অবস্থান, পারিপার্শ্বিকতা, নির্মিতব্য ভবনের গুণগত মান এবং সম্ভাব্য বাড়ীভাড়ার ভিত্তিতে কর্পোরেশন এলাকা ভেদে নির্মিতব্য ভবনের/ কাঠামোর ঋণের সিলিং এবং নির্মাণ হার নিম্নরূপে নির্ধারণ করা হয়েছে:

ক্রমিক নম্বর

এলাকার নাম

ঋণের সর্বোচ্চ সিলিং (লক্ষ টাকায়)

প্রতি বর্গফুটের নির্মাণ হার (টাকায়)

ঋণ গ্রহীতার  নিজস্ব বিনিয়োগ

(সর্বনিম্ন)

১।

ঢাকা ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন এলাকা।

৫০.০০

নীচতলা আবাসিক

২১৫০/-টাকা

গ্যারেজ ১৬৬০/-টাকা

উপরের তলা সমূহ ১৩৫০/-টাকা

২০%

২।

বিভাগীয় শহর খুলনা, রাজশাহী, সিলেট, বরিশাল ও রংপুর।

৪৫.০০

নীচতলা আবাসিক

২০৪৮/-টাকা

গ্যারেজ ১৫৮০/-টাকা

উপরের তলা সমূহ ১২৩০/-টাকা

২০%

৩।

কুমিল্লা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর সিটিকর্পোরেশন, ময়মনসিংহ, মৌলভীবাজার জেলা সদর এবং টঙ্গী ও সাভার পৌরসভা।

৪০.০০

নীচতলা আবাসিক

২০৪৮/-টাকা

গ্যারেজ ১৫৮০/-টাকা

উপরের তলা সমূহ ১২৩০/-টাকা

২০%

 

৪।

অন্যান্য সকল পুরাতন জেলা সদর, সাভার ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের আওতাধাীন এলাকা এবং যে সকল স্থানে কর্পোরেশনের  রিজিওনাল অফিস আছে।

 

৩৫.০০

নীচতলা আবাসিক

২০৪৮/-টাকা

গ্যারেজ ১৫৮০/-টাকা

উপরের তলা সমূহ ১২৩০/-টাকা

 

২০%

৫।

 

সকল নতুন জেলা সদর।

 

৩০.০০

নীচতলা আবাসিক

২০৪৮/-টাকা

গ্যারেজ ১৫৮০/-টাকা

উপরের তলা সমূহ ১২৩০/-টাকা

 

২০%

৬।

সকল উপজেলা সদর ও পৌর এলাকা। *

 

২৫.০০

নীচতলা আবাসিক

২০৪৮/-টাকা

গ্যারেজ ১৫৮০/-টাকা

উপরের তলা সমূহ ১২৩০/-টাকা

 

২০%

 

* মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত ঋণ স্কীমের আওতায় ৫৫০ থেকে ১০০০ বর্গফুট আয়তনের ইউনিট বিশিষ্ট অনুমোদিত প্লানে দেশের      সকল এলাকায় গ্রুপ ঋণ প্রদান করা যাবে। এছাড়া ১০০০ বর্গফুটের বেশী আয়তনের ইউনিট বিশিষ্ট প্লানে বাড়ী নির্মাণের ক্ষেত্রে জেলা শহরের বাইরে কেবলমাত্র টঙ্গী ও সাভার পৌর এলাকায় এবং সাভার ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড এলাকায়  গ্রুপ ঋণ প্রদান করা যাবে।

 

 

 

ঋণ পরিশোধ মেয়াদ ও সুদের হার:

 

সাধারণ ঋণ ও গ্রুপ ঋণ ১৫ বছর এবং মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত স্কীমের ঋণ ২০ বছর এবং স্বল্প মেয়াদী বিশেষ ঋণের বেলায় ৫ বছর। মোট ঋণ মেয়াদে ঋণের আসল ও সুদের সমুদয় পাওনা কর্পোরেশন নির্ধারিত সমান মাসিক কিস্তিতে পরিশোধযোগ্য। ঢাকা ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন এলাকায় সুদের হার ১২% এবং দেশের অন্যান্য এলাকায় সুদের হার ১০%।

 

৫.১       সাধারণ ঋণের মাসিক কিস্তির পরিমাণ (এক লক্ষ টাকার ভিত্তিতে এবং আইডিসিপি বাদে):

পরিশোধের মেয়াদ

সুদের হার

প্রতি লক্ষ টাকার মাসিক কিস্তির পরিমাণ

আসল

সুদ

মোট

১৫ বছর

১০%

৫৫৫.৫৬

৪১৮.৯৮

৯৭৪.৫৪ টাকা

১৫ বছর

১২%

৫৫৫.৫৬

৫০২.৭৮

১০৫৮.৩৪ ’’

২০ বছর

১২%

৪১৬.৬৭

৫০২.০৮

৯১৮.৭৫ ’’

২০ বছর

১০%

৪১৬.৬৭

৪১৮.৪০

৮৩৫.০৭ ’’

৫ বছর

১০%

১৬৬৬.৬৭

৪২৩.৬১

২০৯০.২৮ ’’

৫ বছর

১২%

১৬৬৬.৬৭

৫০৮.৩৩

২১৭৫.০০ ’’


Share with :